মেট্রোরেলের ভাড়ার পূর্ণাঙ্গ তালিকা প্রকাশ

মেট্রোরেলের ভাড়ার পূর্ণাঙ্গ তালিকা প্রকাশ করেছে ঢাকা যানবাহন সমন্বয় কর্তৃপক্ষ (ডিটিসিএ)। বৃহস্পতিবার সংস্থাটির বিজ্ঞপ্তিতে, এক স্টেশন থেকে আরেক স্টেশনের ভাড়া কত হবে, তা জানানো হয়েছে।

আগামী ডিসেম্বরে মেট্রোরেলের যে অংশ প্রথমে চালু হবে, সেই উত্তরা নর্থ স্টেশন (দিয়াবাড়ী) থেকে আগারগাঁও স্টেশনের ভাড়া ৬০ টাকা।

মেট্রোরেলের (এমআরটি-৬) পল্লবী স্টেশন থেকে মিরপুর ১১, মিরপুর ১০ ও কাজীপাড়ার ভাড়া ২০ টাকা। শেওড়াপাড়া ও আগারগাঁওয়ের ভাড়া ৩০ টাকা। মিরপুর ১১ নম্বর থেকে দিয়াবাড়ির ও আগারগাঁওয়ের ভাড়া ৩০ টাকা। মিরপুর ১০, কাজীপাড়া, শেওড়াপাড়া, উত্তরা সাউথ ও সেন্টারের ভাড়া ২০ টাকা। মিরপুর ১০ থেকে কাজীপাড়া ও শেওড়াপাড়ার ভাড়া ২০ টাকা। আগারগাঁওয়ের ভাড়াও ২০ টাকা। দিয়াবাড়ির ভাড়া ৪০ টাকা।

সড়ক পরিবহন মন্ত্রী ওবায়দুল কাদের আগেই জানিয়েছিলেন মেট্রোরেলে সর্বনিম্ন ভাড়া ২০ টাকা। সর্বোচ্চ ১০০ টাকা। তবে ১০০ টাকার পথ পাড়ি দেওয়ার সুযোগ এ বছর নেই। আগামী বছরের ডিসেম্বরে আগারগাঁও থেকে কমলাপুর অংশ চালু হবে আশা করা হচ্ছে।

ডিটিসিএ বিজ্ঞপ্তিতে জানিয়েছে, দিয়াবাড়ি থেকে মতিঝিল ও কমলাপুরের ভাড়া ১০০ টাকা। টিএসসি ও সচিবালয়ের ভাড়া ৯০ টাকা। কাওরানবাজার ও শাহবাগের ভাড়া ৮০ টাকা। ফার্মগেটের ভাড়া ৭০ টাকা। আগারগাঁওয়ের মতো বিজয়স্মরনীরও ভাড়া ৬০ টাকা।

দিয়াবাড়ি, উত্তরা সেন্টার ও সাউথ স্টেশনের আশেপাশের এলাকা বসতি নেই এখনও। এমআরটি-৬ এর এই প্রথম তিন স্টেশন বাদে বাকি ১৪টিতে যাত্রীর চাপ থাকবে বলে ধারণা করা হচ্ছে। পল্লবী থেকে বিজয় সরণির ভাড়া ৪০ টাকা। ফার্মগেটের ভাড়া ৫০ টাকা। মিরপুর ১১ থেকে ফার্মগেটের ভাড়া ৪০ টাকা। মিরপুর ১০ থেকে ফার্মগেট ৩০ টাকা।

ঢাকায় বাসে সর্বনিম্ন ভাড়া ১০ টাকা। কিলোমিটার প্রতি ভাড়া ২ টাকা ৪৫ পয়সা। সড়ক পথে মিরপুর ১০ থেকে ফার্মগেটের দূরত্ব ৬ দশমিক ৭ কিলোমিটার। ভাড়া ১৬ টাকা। একই দূরত্বে মেট্রোরেলে ভাড়া ৩০ টাকা। ওয়েবসাইটের তথ্যানুযাযী, ভারতের কলকাতায় মেট্রোরেলের ভাড়া ৫ থেকে ২৫ রুপি এবং দিল্লিতে ১০ থেকে ৬০ রুপি।

মেট্রোরেলের ভাড়া নিয়ে পাল্টাপাল্টি আলোচনা সমালোচনা চলছে। অনেকের অভিমত প্রতিবেশী দেশ ও বাসের তুলনায় ভাড়া বেশি। আবার কারো কারো অভিমত, ভাড়া বেশি হলেও নির্ধারিত সময়ে যানজটমুক্ত ভ্রমণের নিশ্চয়তা রয়েছে মেট্রোরেলে। ট্রেনও শীতাতপ নিয়ন্ত্রিত। মতিঝিল থেকে উত্তরার এসি বাসে ভাড়া ১০০ টাকা। মেট্রোরেলেও তাই।

মেট্রোরেলের ১৭টি স্টেশনের একটি থেকে আরেকটির ভাড়া ২০, ৩০, ৪০, ৫০, ৬০, ৭০, ৮০, ৯০ ও ১০০ টাকা।

মেট্রোরেল আইন অনুযায়ী ভাড়া নির্ধারণ করেছে ডিটিসিএর নির্বাহী পরিচালকের নেতৃত্বাধীন ৭ সদস্যের কমিটি। একজন সদস্য সমকালকে বলেন, কমিটির প্রস্তাব ছিল ৫ এর গুণিতক ধরে ভাড়া নির্ধারণ। কিন্তু এর জন্য বাংলাদেশ ব্যাংকের শরণাপন্ন হতে হতো ভাংতি টাকার জন্য। এ কারণে ভাড়া ১৫, ২৫, ৩৫ না করে ২০, ৩০, ৪০ টাকা করা হয়েছে। প্রাথমিক ভাড়া কিলোমিটার হিসাবে ধরা হয়। তারপর ১০ এর গুণিতক যে সংখ্যাটি সবচেয়ে কাছের, তা ভাড়া হিসেবে চূড়ান্ত করা হয়েছে। কিলোমিটার হিসাবে ভাড়া ২২ হলে ২০ আর ২৬ হলে ৩০ টাকা নির্ধারণ করা হয়েছে।

সড়ক পরিবহন বিভাগের অতিরিক্ত সচিব ও ভাড়া নির্ধারণ কমিটির সদ্য সাবেক সভাপতি নীলিমা আখতার সমকালকে বলেন, ২০ টাকায় দুই থেকে তিনটি স্টেশন ভ্রমণ করা যাবে। একজন যাত্রী মিরপুর ১০ নম্বর স্টেশন থেকে ২০ টাকায় আগারগাঁও পর্যন্ত যেতে পারবেন। মিরপুর ১০ এবং আগারগাঁওয়ের মধ্যবর্তী শেওড়াপাড়া বা কাজীপাড়ায় নামলেও ২০ টাকা ভাড়া দিতে হবে। আবার দিয়াবাড়ি থেকে ২০ টাকায় উত্তরা সেন্টার ও সাউথ স্টেশন পর্যন্ত যাওয়া যাবে। যেখানে দূরত্ব কম, যেখানে ২০ টাকায় তিনটি স্টেশন এবং যেখানে দূরত্ব বেশি সেখানে দুটি স্টেশন ভ্রমণ করা যাবে।

তবে স্টেশনে টিকিট কেনার সুযোগ রাখলেও স্মার্ট কার্ডকে প্রাধান্য দিচ্ছে সরকার। মেট্রোরেলের নির্মাণকারী কর্তৃপক্ষ ডিএমটিসিএলের ব্যবস্থাপনা পরিচালক এম,এ,এন, ছিদ্দিক সমকালকে জানিয়েছেন, নভেম্বর থেকে স্মার্ট কার্ড পাওয়া যাবে। সর্বনিম্ন ২০০ থেকে ১০ হাজার টাকা পর্যন্ত রিচার্জ করা যাবে।

ডিটিসিএ বিজ্ঞপ্তিতে জানিয়েছে, স্মার্ট কার্ডে ভ্রমণ করলে ভাড়ায় ১০ শতাংশ ছাড় পাওয়া যাবে।

ডিটিসিএর অতিরিক্ত নির্বাহী পরিচালক একেএম হাফিজুর রহমান সমকালকে বলেন, মেট্রোরেল আইনে ভাড়া নির্ধারণ করে প্রজ্ঞাপন জারির প্রয়োজন নেই। আইনের ১৯ ধারার বিজ্ঞপ্তির কথা বলা হয়েছে। মন্ত্রণালয় এবং প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার অনুমোদিত ভাড়ার তালিকা প্রকাশ করা হয়েছে। এটিই কার্যকর হবে।

দিয়াবাড়ি থেকে কমলাপুর পর্যন্ত এমআরটি-৬ এর দৈর্ঘ্যে ২১ দশমিক ২৬ কিলোমিটার। এটিই দেশের প্রথম মেট্রোরেল। ঢাকায় আরও ৫টি মেট্রোরেল নির্মিত হবে। ২০১২ সালে ২১ হাজার ৯৮৫ কোটি টাকা ব্যয় ধরে এমআরটি-৬ প্রকল্প অনুমোদিত হয়। এর ব্যয় বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৩৩ হাজার ৪৭২ কোটি টাকা। এই লাইনে ঘণ্টায় ৬০ হাজার এবং প্রতিদিন ৪ লাখ ৮৩ হাজার যাত্রী চড়বে বলে প্রাক্কলন করা হয়েছে। ভোর থেকে ১২টা পর্যন্ত প্রতি সাড়ে তিন মিনিট অন্তর ট্রেন চলবে। যাত্রীদের ভাড়ার টাকায় মেট্রোরেল নির্মাণে নেওয়া জাপানের ঋণ এবং পরিচালনা ব্যয় তুলতে হবে। প্রতিদিন ৩ কোটি টাকার বেশি আয় করতে হবে শুধু পরিশোধে। উচ্চ ভাড়া বলা হলেও, মেট্রোরেল শুরুতে লোকসান করবে। আর এ জন্য সরকারকে ভতুর্কি দিতে হবে।

মেট্রোরেলে পূর্ণাঙ্গ ভাড়ার তালিকা

সুত্রঃ সমকাল

Comments

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

সর্বশেষ